Home / অন্যান্য / মেয়ে বলে বসল – এক্সপেল যদি করেন তাইলে আমারে বিয়া করতে হবে।

মেয়ে বলে বসল – এক্সপেল যদি করেন তাইলে আমারে বিয়া করতে হবে।

আমার এক আত্মীয় ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে গিয়েছিলেন গ্রামের একটা গার্লস স্কুলে পরীক্ষার পরিদর্শনে।

এবং পরীক্ষার হলেই এক মেয়েকে নকল হাতে হাতে নাতে ধরে ফেললেন।

এক্সপেল করবেন।

মেয়ে প্রায় পায়ে পড়ে পড়ে অবস্থা।

কিন্তু তিনি অনড়, এক্সপেল করবেন।

কিন্তু এরপর যা ঘটল সেটার জন্য আমার আত্মীয় একেবারেই প্রস্তুত ছিলেন না।

মেয়ে বলে বসল – এক্সপেল যদি করেন তাইলে আমারে বিয়া করতে হবে।

আমার আত্মীয়ের মাথায় কয়েকটা আকাশ একসাথে ভেঙে পড়ল।

– মানে কি????

– এই যে আপনি আমাকে সবার সামনে এক্সপেল করবেন, এরপর কি আমার বিয়া হবে? এক্সপেল করলে এখনই বিয়া করবেন আমাকে।

আমার আত্মীয় মশাই সেইদিনই পণ করলেন, আর জীবনেও গার্লস স্কুলে পরিদর্শনে যাবেন না।

যাই হোক আমি কখনই আত্মহত্যার সমর্থক ছিলাম না। আত্মহত্যাই একমাত্র পথ না। অনেক অনেক পথ আছে।

এখানে এক পাক্ষিক দোষও দেওয়া যায় না।

আমার ফ্রেন্ডলিস্টের Borhan ভাইয়ের স্ট্যাটাস দেখলাম – বেশি গুরুত্ব দিলে ভালবাসার মানুষও স্বেচ্ছাচারী হয়ে ওঠে। আর এ তো স্কুল।

আমাদের ছেলেবেলায় এত সুইসাইডের ন্যাকামি ছিল না। এখন কেন এইসব ন্যাকামি বাড়ল সেটা বের করে সমাধান জরুরি।

একটা জিনিস মানুষ কেন এখনও বোঝে না যে ক্লাসের প্রথম সারির যেসব ছেলেমেয়েরা স্কুল জীবনে ক্লাস ডোমিনেট করে তারাই ক্যারিয়ার জীবনে ব্যাকবেঞ্চারদের কেনা গোলাম হিসেবে জীবন যাপন করে।

উচ্চশিক্ষিতরা কখনই পৃথিবীতে রাজত্ব করে নাই, করেছে উচ্চবিত্তরা।

ক্যাপিটালিস্টদের হাতেই সবাই আমরা বন্দী। উচ্চবিত্তরা চাইলেই ডজনখানেক ডাক্তার এঞ্জিনিয়ার সায়েন্টিস্ট কিনে পকেটে রাখতে পারে, উচ্চশিক্ষিতরা চাইলেই উচ্চবিত্তের কাছেও ঘেঁষতে পারে না।

শিক্ষায় মুক্তি আছে, উচ্চ শিক্ষায় মুক্তি নেই। যে যত উচ্চ শিক্ষিত, সে সোসাইটির জন্য তত বার্ডেন। সে তত বড় সাইলেন্ট গোলামিতে আটকে যায়।

ফার্স্ট ওয়ার্ল্ডের দেশগুলোর দিকে দেখেন। কয়জন গ্র‍্যাজুয়েট। আমাদের দেশে কতজন গ্র‍্যাজুয়েট।

এত এত ইউজলেস বেকার গ্র‍্যাজুয়েট দিয়ে দেশ কি করবে?

উচ্চশিক্ষিতরা কখনই দেশের অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখতে পারে নাই। ভূমিকা রেখেছে ওইসব ব্যাকবেঞ্চাররা যারা লাইফে ঠেকে গিয়ে উদ্যোক্তা হয়েছে। এরপর তার বেকার ডাক্তার এঞ্জিনিয়ার সহপাঠিদের চাকুরির স্কোপ করে দিয়েছে।

যতদিন এই রিয়েল ফ্যাক্ট আমাদের নাড়া না দেবে ততদিন এইসব স্কলাস্টিকা ভিকারুন্নেসা ওভাররেটেড প্রতিষ্ঠান হয়ে থাকবে।

আর হালকা বাতাস লাগলেই সুইসাইড করা তো হালের ফ্যাশন।

–কৃতজ্ঞতা: যুবায়ের আহমেদ

Facebook Comments

About Priyo Golpo

Check Also

হুইসেল-whistle-abdul-zabbar-khan-jiboner-golpo

হুইসেল । Whistle

বিকেল পাঁচটার দিকে ঢাকা ইউনিভার্সিটি টিএসসি’র সামনে থেকে একটা রিকশা নিলাম। প্যাসেঞ্জার সুমি এবং আমি। …

error: Content is protected !!